জান্নাতের পথে বাধা সৃষ্টি করে যে সব কাজ – SQLi Basic


জান্নাতেরপথে বাধা সৃষ্টি করেযে সব কাজ

. ঈমান না আনা
রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামবলেন,
ﻳَﺪْﺧُﻞُ ﺍﻟْﺠَﻨَّﺔَ ﺇِﻻ ﻣُﺆْﻣِﻦٌ
ঈমানদার ব্যতীত কেউ জান্নাতেপ্রবেশ করবে না” (বুখারী মুসলিম)
তিনি আরও বলেন,
ﺗَﺪْﺧُﻠُﻮﺍ ﻥَ ﺍﻟْﺠَﻨَّﺔَ ﺣَﺘَّﻰﺗُﺆْﻣِﻨُﻮﺍ
তোমরা ঈমান না আনাপর্যন্ত জান্নাতে প্রবেশ করতে পারবেননা” (সহীহ্মুসলিম, হা/৫৪)
. প্রতিবেশীকে কষ্ট দেয়া
রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামবলেছেন,
ﻳَﺪْﺧُﻞُ ﺍﻟْﺠَﻨَّﺔَ ﻣَﻦْ ﻳَﺄْﻣَﻦُﺟَﺎﺭُﻩُ ﺑَﻮَﺍﺋِﻘَﻪُ
যার অনিষ্ট থেকে তারপ্রতিবেশী নিরাপদ থাকে নাসে জান্নাতে প্রবেশ করবে না” (সহীহমুসলিম/৪৬)
. অহংকার করা
রসূল সাল্লালাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামবলেছেন,
ﻳَﺪْﺧُﻞُ ﺍﻟْﺠَﻨَّﺔَ ﻣَﻦْ ﻛَﺎﻥَ ﻓِﻲﻗَﻠْﺒِﻪِ ﻣِﺜْﻘَﺎﻝُ ﺫَﺭَّﺓٍ ﻣِﻦْ ﻛِﺒْﺮٍ
যার অন্তরে অণু পরিমাণঅহংকার রয়েছে সে জান্নাতেপ্রবেশ করবে না ” (মুসলিম, হা/৯১)
. চোগলখোরি পরনিন্দা করা
রসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামবলেছেন,
ﻳَﺪْﺧُﻞُ ﺍﻟْﺠَﻨَّﺔَ ﻧَﻤَّﺎﻡٌ
চুগলখোর বা পর নিন্দাকারীজান্নাতে প্রবেশ করবে না” (সহীহ মুসলিম, হা/১০৫)
তিনি আরও বলেছেন,
ﺗَﺠِﺪُ ﻣِﻦْ ﺷَﺮِّ ﺍﻟﻨَّﺎﺱِﻳَﻮْﻡَ ﺍﻟْﻘِﻴَﺎﻣَﺔِ ﻋِﻨْﺪَ ﺍﻟﻠَّﻪِ ﺫَﺍﺍﻟْﻮَﺟْﻬَﻴْﻦِ ﺍﻟَّﺬِﻱ ﻳَﺄْﺗِﻲ ﻫَﺆُﻟَﺎﺀِ ﺑِﻮَﺟْﻪٍ ﻭَﻫَﺆُﻟَﺎﺀِ ﺑِﻮَﺟْﻪٍ
কিয়ামতের দিন সবচেয়ে খারাপলোকদের দলভুক্ত হিসেবে ব্যক্তিকেদেখতে পাবে যে, যেছিল দুমুখোযে এক জনেরকাছে এক কথা আরেকজনের কাছে আরেক কথানিয়ে হাজির হত” (সহীহ মুসলিম, হা/২৫২৬)
. আত্মহত্যা করা
নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহিওয়া সাল্লাম বলেছেন,
ﻣَﻦْ ﺗَﺮَﺩَّﻯ ﻣِﻦْ ﺟَﺒَﻞٍ ﻓَﻘَﺘَﻞَﻧَﻔْﺴَﻪُ ، ﻓَﻬْﻮَ ﻓِﻰﻧَﺎﺭِ ﺟَﻬَﻨَّﻢَ ، ﻳَﺘَﺮَﺩَّﻯ ﻓِﻴﻪِﺧَﺎﻟِﺪًﺍ ﻣُﺨَﻠَّﺪًﺍ ﻓِﻴﻬَﺎ ﺃَﺑَﺪًﺍ ،ﻭَﻣَﻦْ ﺗَﺤَﺴَّﻰ ﺳَﻤًّﺎ ﻓَﻘَﺘَﻞَ ﻧَﻔْﺴَﻪُ، ﻓَﺴَﻤُّﻪُ ﻓِﻰ ﻳَﺪِﻩِ ،ﻳَﺘَﺤَﺴَّﺎﻩُ ﻓِﻰ ﻧَﺎﺭِ ﺟَﻬَﻨَّﻢَﺧَﺎﻟِﺪًﺍ ﻣُﺨَﻠَّﺪًﺍ ﻓِﻴﻬَﺎ ﺃَﺑَﺪًﺍ ،ﻭَﻣَﻦْ ﻗَﺘَﻞَ ﻧَﻔْﺴَﻪُ ﺑِﺤَﺪِﻳﺪَﺓٍ، ﻓَﺤَﺪِﻳﺪَﺗُﻪُ ﻓِﻰ ﻳَﺪِﻩِ ،ﻳَﺠَﺄُ ﺑِﻬَﺎ ﻓِﻰ ﺑَﻄْﻨِﻪِﻓِﻰ ﻧَﺎﺭِ ﺟَﻬَﻨَّﻢَ ﺧَﺎﻟِﺪًﺍﻣُﺨَﻠَّﺪًﺍ ﻓِﻴﻬَﺎ ﺃَﺑَﺪًﺍ
যে ব্যক্তি নিজেকে পাহাড়ের ওপরথেকে নিক্ষেপ করে আত্মহত্যা করবে, সে জাহান্নামে যাবে সেখানেসর্বদা সে ওইভাবে নিজেকেনিক্ষেপ করতে থাকবে অনন্তকালধরে যেব্যক্তি বিষপান করে আত্মহত্যাকরবে, সে তার বিষতার হাতে থাকবেজাহান্নামে সর্বদা সে ওইভাবেনিজেকে বিষ খাইয়ে মারতেথাকবে অনন্তকাল ধরে যেকোনো ধারালো অস্ত্র দ্বারাআত্মহত্যা করেছে তার কাছেজাহান্নামে সে ধারালো অস্ত্রথাকবে যার দ্বারা সেসর্বদা নিজের পেটকে ফুঁড়তেথাকবে [সহীহবুখারী : ৫৪৪২; মুসলিম : ১০৯]
. আত্মীয়তার সম্পর্ক ছিন্ন করা
রসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামবলেছেন,
ﻳَﺪْﺧُﻞُ ﺍﻟْﺠَﻨَّﺔَ ﻗَﺎﻃِﻊُ ﺭَﺣِﻢٍ
আত্মীয়তার সম্পর্ক ছিন্নকারী জান্নাতে প্রবেশ করবে না” (সহীহমুসলিম, হা/২৫৫৬)
. উপকার করে খোটাদেয়া
রসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামবলেছেন:
ﻳَﺪْﺧُﻞُ ﺍﻟْﺠَﻨَّﺔَ ﻣَﻨَّﺎﻥٌ
সে ব্যক্তি জান্নাতে প্রবেশ করবে নাযে উপকার করে খোটাদেয়সুনাননাসাঈ, হা/ ৫৬৮৮, সহীহ, আলবানী)
. যাদুর বৈধতায় বিশ্বাসকরা
. মদ, গাঁজা নেশা দ্রব্য গ্রহণ করা
১০. ঋণ পরিশোধ নাকরা
রসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামএর নিকট কোন ঋণগ্রস্তমৃতের লাশ (জানাযার জন্য) নিয়ে আসা হলে জিজ্ঞেসকরতেন, “সে ঋণ পরিশোধেরব্যবস্থা করেছে কি না?” যদি বলা হত করেছে, তবে জানাযা পড়তেনঅন্যথায় (সাহাবীদেরকে) বলতেন,
ﺻَﻠُّﻮﺍ ﻋَﻠَﻰ ﺻَﺎﺣِﺒِﻜُﻢْ
তোমরা তোমাদের সাথীর জানাযা পড়েনাও (কিন্তু তিনি নিজেতাতে অংশ গ্রহণ করতেননা) (সহীহমুসলিম, হা/১৬১৯)
অন্য হাদীসে রয়েছে, রসূলসাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামবলেছেন:
ﻳُﻐْﻔَﺮُ ﻟِﻠﺸَّﻬِﻴﺪِ ﻛُﻞُّ ﺫَﻧْﺐٍ ﺇِﻟَّﺎﺍﻟﺪَّﻳْﻦَ
শহীদের ঋণ ছাড়া সবগুনাহ ক্ষমা করে দেয়াহবে” (সহীহমুসলিম, হা/১৮৮৬)
১১. পুরুষ বেশধারী নারী
১২. দাইয়ুস: রসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহিওয়া সাল্লাম বলেছেন:
ﺍﻟﺪَّﻳُّﻮﺙُ ﺍﻟَّﺬِﻱ ﻳُﻘِﺮُّ ﻓِﻲ ﺃَﻫْﻠِﻪِ ﺍﻟْﺨَﺒَﺚَ
ব্যক্তিকে দাইয়ুস বলা হয়যে তার পরিবারের অশ্লীলতা কুকর্মকে মেনে নেয়” (মুসনাদ আহমদ, নাসাঈ)
১৩. বৃদ্ধ ব্যভিচারী
১৪. মিথ্যাবাদী শাসক
১৫. অহংকারী দরিদ্র
রসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামবলেন,
ﺛَﻼﺛَﺔٌ ﻳُﻜَﻠِّﻤُﻬُﻢُ ﺍﻟﻠَّﻪُﻳَﻮْﻡَ ﺍﻟْﻘِﻴَﺎﻣَﺔِ ﻭَﻻ ﻳُﺰَﻛِّﻴﻬِﻢْ ﻭَﻟَﻬُﻢْﻋَﺬَﺍﺏٌ ﺃَﻟِﻴﻢٌ : ﺷَﻴْﺦٌ ﺯَﺍﻥٍ ،ﻭَﻣَﻠِﻚٌ ﻛَﺬَّﺍﺏٌ ، ﻭَﻋَﺎﺋِﻞٌ ﻣُﺴْﺘَﻜْﺒِﺮٌ
কিয়ামতের আল্লাহ দিন তিনশ্রেণীর লোকের সাথে কথাবলবেন না, তাদেরকে গুনাহথেকে পবিত্র করবেন নাএবং তাদের জন্য রয়েছেপীড়া দায়ক শাস্তিতারা হল, বৃদ্ধ ব্যভিচারী, মিথ্যাবাদী শাসক, অহংকারী দরিদ্র (মুসলিম, হা/১০৭)
১৬. কঠোর প্রকৃতি কটুভাষী লোক এবং যেব্যক্তি মানুষের কাছে এমন বিষয়নিয়ে গর্বঅহংকার প্রকাশকরে বেড়ায় প্রকৃতপক্ষে যাতার নিকট নেই
রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামবলেন,
ﻟَﺎ ﻳَﺪْﺧُﻞُ ﺍﻟْﺠَﻨَّﺔَ ﺍﻟْﺠَﻮَّﺍﻅُ ، ﻭَﻟَﺎ ﺍﻟْﺠَﻌْﻈَﺮِﻱُّ
কঠোর প্রকৃতি কটুভাষী লোকজান্নাতে প্রবেশ করবে নাএবং লোকও নয়যে এমন সব বিষয়েমানুষের নিকট গর্বঅহংকারপ্রকাশ করে বেড়ায় প্রকৃতপক্ষেযা তার কাছে নাই” (আবুদাঊদ, হা/৪৮০১)
১৭. মুসলিম সরকারের সাথেচুক্তিবদ্ধ ভাবে বসবাসকারী অমুসলিমকেহত্যা করা
নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহিওয়া সাল্লাম বলেছেন,
ﻣَﻦْ ﻗَﺘَﻞَ ﻣُﻌَﺎﻫَﺪًﺍ ﻟَﻢْﻳَﺮِﺡْ ﺭَﺍﺋِﺤَﺔَ ﺍﻟْﺠَﻨَّﺔِ ، ﻭَﺇِﻥَّ ﺭِﻳﺤَﻬَﺎﺗُﻮﺟَﺪُ ﻣِﻦْ ﻣَﺴِﻴﺮَﺓِ ﺃَﺭْﺑَﻌِﻴﻦَﻋَﺎﻣًﺎ
যে ব্যক্তি কোন মুয়াহিদ তথামুসলিম সরকারের সাথে চুক্তিবদ্ধ ভাবেবসবাসকারী কোন অমুসলিমকে হত্যাকরবে সে জান্নাতের ঘ্রাণওপাবে না অথচচল্লিশ বছরের পথের দূরত্বথেকে জান্নাতের সুঘ্রাণ পাওয়া যায়” (সহীহ বুখারী হা/৩১৬৬)
১৮. বিশ্বাসঘাতক শাসক
রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামবলেন,
ﻣَﺎ ﻣِﻦْ ﻋَﺒْﺪٍ ﻳَﺴْﺘَﺮْﻋِﻴﻪِﺍﻟﻠَّﻪُ ﺭَﻋِﻴَّﺔً ، ﻳَﻤُﻮﺕُ ﻳَﻮْﻡَﻳَﻤُﻮﺕُ ﻭَﻫُﻮَ ﻏَﺎﺵٌّ ﻟِﺮَﻋِﻴَّﺘِﻪِﺇِﻻ ﺣَﺮَّﻡَ ﺍﻟﻠَّﻪُ ﻋَﻠَﻴْﻪِ ﺍﻟْﺠَﻨَّﺔَ
যাকে আল্লাহ তায়ালা জনসাধারণেরশাসনকর্তা হিসেবে দায়িত্ব অর্পণকরেছেন, কিন্তু সে জনগণেরসাথে বিশ্বাসঘাতকতা করেছে এবং বিশ্বাসঘাতকঅবস্থায় মৃত্যু বরণ করেছেতাহলে আল্লাহ তার জন্যজান্নাত হারাম করে দিবেন” (সহীহমুসলিম, হা/১৪২)
১৮. মানুষকে প্রহার করা
১৯. মহিলাদের পর্দা হীনতা
নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহিওয়া সাল্লাম বলেছেন,
ﺻِﻨْﻔَﺎﻥِ ﻣِﻦْ ﺃَﻫْﻞِ ﺍﻟﻨَّﺎﺭِ، ﻟَﻢْ ﺃَﺭَﻫُﻤَﺎ ﻗَﻮْﻡٌﻣَﻌَﻬُﻢْ ﺳِﻴَﺎﻁٌ ﻛَﺄَﺫْﻧَﺎﺏِ ﺍﻟْﺒَﻘَﺮِ ﻳَﻀْﺮِﺑُﻮﻥَ ﺑِﻬَﺎ ﺍﻟﻨَّﺎﺱَ ،ﻭَﻧِﺴَﺎﺀٌ ﻛَﺎﺳِﻴَﺎﺕٌ ﻋَﺎﺭِﻳَﺎﺕٌ ﻣُﻤِﻴﻠَﺎﺕٌ ﻣَﺎﺋِﻠَﺎﺕٌ ، ﺭُﺀُﻭﺳُﻬُﻦَّ ﻛَﺄَﺳْﻨِﻤَﺔِﺍﻟْﺒُﺨْﺖِ ﺍﻟْﻤَﺎﺋِﻠَﺔِ ، ﻟَﺎ ﻳَﺪْﺧُﻠْﻦَﺍﻟْﺠَﻨَّﺔَ ﻭَﻟَﺎ ﻳَﺠِﺪْﻥَ ﺭِﻳﺤَﻬَﺎ، ﻭَﺇِﻥَّ ﺭِﻳﺤَﻬَﺎ ﻟَﻴُﻮﺟَﺪُ ﻣِﻦْ ﻣَﺴِﻴﺮَﺓِ ﻛَﺬَﺍﻭَﻛَﺬَﺍ
দু শ্রেণীর মানুষ জাহান্নামে যাবেযাদের আমি এখনো দেখিনি (অর্থাৎনবী সাল্লালাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামএর যুগে তাদের আত্মপ্রকাশহয় নি)
) এমন কিছু লোকযাদের হাতে থাকবে গরুরলেজের মত লাঠিএরা তা দিয়ে জনগণকেপ্রহার করবে
) এবং সকলউলঙ্গঅর্ধ উলঙ্গ নারীযারা (নিজেদের চলাফেরা বেশভূষায়) মানুষের মনোযোগ আকর্ষণ করবেএবং নিজেরাও অন্য মানুষের প্রতিআকৃষ্ট হবে তাদেরমাথায় উটের মত উঁচুএবং একপাশে ঝুঁকে থাকাচূড়ার মতো কেশ রাশিশোভা পাবে এসমস্তনারী জান্নাতে তো যাবেই নাবরং জান্নাতের সুঘ্রাণও পাবে না অথচএত এত দূর থেকেজান্নাতের সুঘ্রাণ পাওয়া যায়” (সহীহ মুসলিম, হা/২১২৮)
গুরুত্ব পূর্ণ টিকা:
উপরোক্ত কাজগুলো কবীরা গুনাহের অন্তর্ভূক্ত কবীরাগুনাাহে লিপ্ত ব্যক্তিরা যদিতওবা করার পূর্বেই মৃত্যুবরণ করে এবং আল্লাহতাদেরকে ক্ষমা না করেনতবে তাদের পরিণতি জাহান্নাম তবেআল্লাহ তায়ালা নিজ দয়া ইনসাফের ভিত্তিতে এদের মধ্যে যাকেখুশি ক্ষমা করে দিবেনযদি সে শিরক থেকেদূরে থাকে কেননাআল্লাহ তায়ালা বলেন:
ﺇِﻥَّ ﺍﻟﻠَّـﻪَ ﻟَﺎ ﻳَﻐْﻔِﺮُ ﺃَﻥﻳُﺸْﺮَﻙَ ﺑِﻪِ ﻭَﻳَﻐْﻔِﺮُ ﻣَﺎﺩُﻭﻥَ ﺫَٰﻟِﻚَ ﻟِﻤَﻦ ﻳَﺸَﺎﺀُ
নিঃসন্দেহে আল্লাহ তাকে ক্ষমাকরেন না, যে লোকতাঁর সাথে শরীক করে তিনিক্ষমা করেন এর নিম্নপর্যায়ের পাপ, যার জন্যতিনি ইচ্ছা করেন” (সূরা নিসা: ৪৮)
তাছাড়া রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহিওয়া সাল্লাম বলেছেন,
( ﻣﻦ ﻣﺎﺕ ﻭﻫﻮ ﻳﻌﻠﻢﺃﻧﻪ ﺇﻟﻪ ﺇﻻﺍﻟﻠﻪ ﺩﺧﻞ ﺍﻟﺠﻨﺔ ‏( ﺭﻭﺍﻩﻣﺴﻠﻢ
যে ব্যক্তি এমন অবস্থায় মারাগেল যে, (জীবিত অবস্থায়) সে ভালো করে জানত, ‘আল্লাহ্ ছাড়া আর কোনসত্য সত্যিকার মাবুদ নেই, সেব্যক্তি অবশ্যই জান্নাতে প্রবেশকরবে” (সহীহমুসলিম)

ভূল ত্রুটি ক্ষমা করবেন। আল্লাহ্ যেন আমাকে হেফাজত করে, আল্লাহ্ আপনাদের ও হেফাজত করুক। আল্লাহুম্মা আমিন্।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Name *
Email *
Website